বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের 'দ্য লোকাল কালিনারি হেরিটেজ অব বাংলাদেশ' 

আপডেট : ০৫ অক্টোবর ২০২৩, ১৪:১৮

ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট আয়োজন করতে যাচ্ছে বাংলাদেশের ঐতিহ্যবাহী খাবারের এক জাঁকজমকপূর্ণ আয়োজন যা আঞ্চলিকভাবে বাংলাদেশের জেলা উপজেলাতে প্রসিদ্ধ। যেহেতু বাঙালি ভোজনপ্রিয়, তাই মা কিংবা নানি-দাদিদের হাতের বাহারি খাবারের স্বাদ এখনও প্রশংসিত। 

যা মনে হলে অতীতের সেই স্বাদ ও ঘ্রাণে আমরা হারিয়ে যাই। অতীতে বিভিন্ন ধরনের দেশীয় খাবার যা রান্না করার পরে আনন্দ উৎসবে মেতে উঠতাম এবং আমাদের নানি-দাদিরা নিজ হাতে মশলা বেটে দেশীয় উপাদান দিয়ে রান্নাবান্না করতেন যা বর্তমানে বিংশ শতাব্দীতে আমরা এবং আমাদের পরবর্তী প্রজন্ম ভুলতে বসেছে। 

ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট সব সময় দেশীয় ঐতিহ্যকে ধারণ ও বাহন করে! সেহেতু আমরা আমাদের খাবারে দেশীয় স্বাদের প্রাধান্য দিয়ে থাকে। শেফরা সর্বদা ১০০% দেশীয় মশলা এবং উপকরণ ব্যবহার করে থাকেন। বাংলাদেশের বিভিন্ন জেলার বা অঞ্চলের প্রসিদ্ধ খাবারগুলোকে আন্তর্জাতিক বা বিদেশি অতিথিদের কাছে  পরিবেশনের মাধ্যমে প্রচার করে থাকে, সঙ্গে বাঙ্গালি আতিথেয়তা প্রসার করে থাকে।    

আপনারা কি জানেন চিকেন টিক্কা মাসালা হচ্ছে ব্রিটেনের জাতীয় তরকারি যা ইংল্যান্ডে অবস্থিত ১৪০০০ বাংলাদেশি রেস্তোরাঁয় বাঙ্গালী ঐতিহ্যকে প্রচার এবং প্রসার করেছে; এই দেশীয় খাবারগুলোকে সমৃদ্ধ করেছে। কিন্তু বর্তমানে আমাদের দেশে ফাস্টফুড এবং ভিনদেশি খাবারের ভিড়ে আমাদের ঐতিহ্যবাহী চিরচেনা খাবারগুলো হারিয়ে যেতে বসেছে। সেখানে ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট নতুন করে নতুন প্রজন্মের কাছে এই খাবারগুলোর স্বাদ পুনরায় পরিচিত করে দিতে যাচ্ছে। এই উদ্দেশ্যেই 'দ্যা লোকাল কালিনারি হেরিটেজ অব বাংলাদেশ'- বাংলার  ঐতিহ্যবাহী খাবারের এক মিলনমেলার আয়োজন।

এখানে বিভিন্ন অঞ্চলের বিভিন্ন স্বাদের মুখরোচক খাবার নিয়ে সাজানো হবে এই খাদ্যসম্ভার যেখানে কিছু অঞ্চলের নাম না বললেই নয়, যেমন – চট্টগ্রামের মেজবান, সিলেটের সাতকড়া বিফ, খুলনার চুইঝাল, কক্সবাজারের লইট্টা ভাজি, চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলার কালাইয়ের রুটি, চাটগাঁওয়ের কালাভুনা। এছাড়াও পুরান ঢাকার খাসির লেগ রোস্ট , নিহারি-তেহারি, বিরিয়ানিতো আছেই। 

মিষ্টি মণ্ডার ভেতরে নাটোরের কাঁচাগোল্লা, নেত্রকোনার বালিশ মিষ্টি, বরগুনার চুইয়া পিঠা, চ্যাবা পিঠা, মুইট্টা পিঠা, বগুড়ার দই, টাঙ্গাইলের পোড়াবাড়ির চমচম, কুমিল্লার রসমালাই, মেহেরপুরের রসকদম্ব, সাথে থাকছে হরেক রকমের ভর্তা। 

ঢাকা রিজেন্সি হোটেল অ্যান্ড রিসোর্ট-এর উচ্চপদস্থ কর্মকর্তা এবং কর্মচারীবৃন্দের উপস্থিতিতে বর্ণাঢ্য আয়োজনের মধ্য দিয়ে ৫ অক্টোবর সন্ধ্যায় এই উৎসবের উদ্বোধন করবেন ঢাকা রিজেন্সি-র ম্যানেজিং ডিরেক্টর কবির রেজা। 

তিনি বলেন, 'বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় বাংলাদেশি হোটেল ব্র্যান্ড হিসাবে, ঢাকা রিজেন্সি সর্বদা স্থানীয় এবং বিদেশি অতিথিদের কাছে বাংলাদেশি ঐতিহ্যবাহী খাবারের প্রচার ও পরিচয় করিয়ে দিতে অনুপ্রাণিত।'   

সব শেফদের তত্ত্বাবধানে এবং বিভিন্ন বিদেশি অতিথি ও ফুড ক্রিটিক্সদের উপস্থিতিতে ৫ অক্টোবর সন্ধ্যা থেকে উদ্বোধনী আয়োজন শুরু হবে এবং চলবে ৩০ অক্টোবর পর্যন্ত। ঐতিহ্যবাহী নানা খাবারে সাজানো এই বিশাল আয়োজনে খাবার মূল্য নির্ধারণ করা হয়েছে ৪৯৯৯ (জনপ্রতি)। ঢাকা রিজেন্সি-র লয়াল্টি প্রোগ্রাম – প্রিমিয়ার ক্লাব মেম্বাররা ব্যুফে ডিনারে পাবেন অগ্রাধিকার। সাথে সিলেক্টেড কার্ড হোল্ডার পাচ্ছেন বাই ওয়ান গেট ওয়ান ফ্রি।  ঢাকা রিজেন্সী-র লয়াল্টি প্রোগ্রাম – প্রিমিয়ার ক্লাব মেম্বাররা ব্যুফে ডিনারে পাবেন অগ্রাধিকার। এই আয়োজনটি সন্ধ্যা সাড়ে ৬টা থেকে রাত সাড়ে ১০টা পর্যন্ত ঢাকা রিজেন্সির হোটেল অ্যান্ড রিসোর্টের জনপ্রিয় গ্র্যান্ডডিওস রেস্টুরেন্টে চলবে এবং সঙ্গে থাকবে ইন্সট্রুমেন্টাল মিউজিক।

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন