মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১
The Daily Ittefaq

মঞ্চে উঠা নিয়ে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষ, ১৮ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা

আপডেট : ০২ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:১১

গোপালগঞ্জের কোটালীপাড়া উপজেলায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের সংঘর্ষের ঘটনায় উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম দাড়িয়াসহ ১৮ নেতা-কর্মীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। এ ঘটনায় এখনো উপজেলায় থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে। পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে মোতায়েন করা হয়েছে পুলিশ।

জানা গেছে, বুধবার (৩১ জানুয়ারি) বিকালে কোটালীপাড়া শেখ লুৎফর রহমান আদর্শ সরকারি কলেজের বার্ষিক ক্রীড়া ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় মঞ্চে ওঠা নিয়ে ছাত্রলীগ নেতা ইমন নিজামী ও শাহাবুদ্দিন দাড়িয়ার মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। একপর্যায়ে এই দুই নেতার সমর্থকরা সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

এ সময় ইমন নিজামী, শাহাবুদ্দিন দাড়িয়াসহ ৫ জন আহত হয়। গুরুতর আহত ইমন নিজামীকে কোটালীপাড়া উপজেলা স্বাস্থ্যকেন্দ্রে ভর্তি করা হলে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি ঘটে। পরে তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। সে বর্তমানে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে।

এ ঘটনায় ইমন নিজামীর ভাই আলী হাসান রিফাত বৃহস্পতিবার (১ ফেব্রুয়ারি) বাদী হয়ে উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম দাড়িয়াসহ ছাত্রলীগের ১৮ নেতা-কর্মীকে আসামি করে কোটালীপাড়া থানায় একটি মামলা করেন।

পৌর ছাত্রলীগের সভাপতি চৌধুরী সেলিম আহম্মেদ ছোটন বলেন, উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম দাড়িয়ার নির্দেশে ছাত্রলীগ নেতা নেতা ইমন নিজামীকে মারপিট করা হয়েছে। সে এখন ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে মৃত্যুর সঙ্গে পাঞ্জা লড়ছে। এই ন্যক্কারজনক কাজের জন্য আমরা শামিম দাড়িয়ার বহিষ্কারের দাবি জানাচ্ছি।

উপজেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক শামিম দাড়িয়া বলেন, আমি দুই পক্ষের সংঘর্ষ নিরসনের চেষ্টা করেছি। আমি কাউকে মারধর করার নির্দেশ দেয়নি। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে আমাকে হয়রানি করা হচ্ছে।

উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ভবেন্দ্রনাথ বিশ্বাস বলেন, আমরা দ্রুতই ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের বিরোধপূর্ণ বিষয়টি রাজনৈতিক এবং সামাজিকভাবে মিটিয়ে ফেলবো।

কোটালীপাড়া থানার ওসি মুহাম্মদ ফিরোজ আলম বলেন, বর্তমানে এলাকার পরিস্থিতি শান্ত ও স্বাভাবিক রয়েছে। উপজেলা সদর ও আশপাশের এলাকায় এখনো পুলিশ মোতায়েন আছে। 

ইত্তেফাক/এবি