সোমবার, ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

রোজ ডে উদযাপনের পেছনে লুকিয়ে থাকা গল্প 

আপডেট : ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৭:২৫

ফেব্রুয়ারি যেমন ভাষার মাস। তেমনই এই মাসে বিশ্বজুড়ে ভালোবাসা উপযাপন করা হয়। ১৪ ফেব্রুয়ারি দিনটা সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয় হলেও ইতোমধ্যেই শুরু হয়ে গেছে ভ্যালেন্টাইন’স উইক। সাত দিন আগে থেকেই শুরু হয় ভালোবাসার সপ্তাহ।

প্রতি বছর ৭ ফেব্রুয়ারি ‘রোজ-ডে’ অর্থাৎ গোলাপ দিবস পালনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় প্রেমের সপ্তাহ। সে অনুযায়ী, আজ রোজ ডে’র মধ্য দিয়ে শুরু হলো ভালোবাসার সপ্তাহ। আর প্রেমের শুরু মানেই ফুল। 

পৃথিবীর বহু মানুষ রোজ ডে পালন করেন কিন্তু অনেকেই জানেন না এই দিনটির পেছনে লুকিয়ে থাকা ইতিহাসের কথা। মনে করা হয়, মুঘল বেগম নুরজাহান লাল গোলাপ পছন্দ করতেন ভীষণভাবে। স্ত্রীকে খুশি করার জন্যই জাহাঙ্গীর প্রতিদিন তার প্রাসাদে এক টন তাজা লাল গোলাপ পাঠাতেন। এই দিনটি উপলক্ষে আরও একটি ইতিহাসের কথা প্রচলিত রয়েছে। মনে করা হয়, রানী ভিক্টোরিয়ার যুগে বহু মানুষ একে অপরকে নিজের মনের কথা প্রকাশ করতেন লাল গোলাপ দিয়ে। সেই ঐতিহ্যকে বজায় রেখেই ভ্যালেন্টাইন উইকের প্রথম দিন পালন করা হয় রোজ ডে হিসাবে। 

অনেকেই হয়তো জানেন না, ৭ ফেব্রুয়ারি ছাড়াও প্রতিবছর ২২ সেপ্টেম্বর পালন করা হয় বিশ্ব গোলাপ দিবস। সারা বিশ্ব জুড়ে ক্যান্সার রোগীদের জন্য উৎসর্গ করা হয় দিনটি। ঘটনার সূত্রপাত ১৯৯৪ সালে কানাডায়। যেখানে ১২ বছর বয়সি ক্যান্সার আক্রান্ত মেলিন্ডা রোজের ক্যান্সারের সঙ্গে কঠিন লড়াইকে সম্মান জানিয়ে প্রথম পালিত করা হয়েছিল বিশ্ব গোলাপ দিবস। মাত্র ১২ বছর বয়সী কানাডার নিবাসী ম্যারিন্ডা রোজ এর ব্লাড ক্যান্সারের একটি বিরল রূপ ধরা পড়ে। চিকিৎসকরা বলেছিলেন এক সপ্তাহের বেশি বাঁচবেন না ম্যারিন্ডা।

তবে সবাইকে চমকে দিয়ে তিন বছর ধরে ক্যান্সারের সঙ্গে লড়াই করে বেঁচে ছিলেন ছোট্ট ম্যারিন্ডা রোজ। তার সেই ক্যান্সারের প্রতি লড়াইকে সম্মান জানিয়ে প্রতিবছর সারা বিশ্বে ক্যান্সার আক্রান্ত রোগীদের এই বিশেষ দিনে গোলাপ ফুল সঙ্গে শুভেচ্ছা বার্তার কার্ড দিয়ে তাদেরকে মনে করিয়ে দেওয়া হয় তারাও পারবেন ক্যান্সারের সঙ্গে যুদ্ধে জয়ী হতে।

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন