বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

ভালোবাসার মৌসুমে ভালোবাসা হোক অকৃপণ  

আপডেট : ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৩:১৬

‘ভালোবাসি, ভালোবাসি এই সুরে কাছে দূরে জলে স্থলে, বাজায় বাঁশি ভালোবিাসি’  

ভালোবাসা প্রকাশের কোন নির্দিষ্ট দিনের প্রয়োজন নেই। যেকোন সময়ই সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে প্রতিটি মানুষের মনেই প্রকৃতির প্রতি ভালোবাসা থাকা এবং তা প্রকাশ করা উদারতার পরিচয় বহন করে। 

তবে ভালোবাসার মৌসুম এলে যেন প্রতিটি দিনই মানুষের জন্য ভালোবাসা প্রকাশের দিন। যদিও মানুষকে ভালো রাখার চেষ্টা সবসময়ই থাকে তবু ফেব্রুয়ারি মাস অর্থাৎ ভালোবাসার এ মৌসুমে প্রিয় মানুষের জন্য ভালোবাসা প্রকাশ করার উচ্ছ্বাস কিছুটা ভিন্ন হলে দোষের কী?

ভালোবাসা হলো পৃথিবীর সবচেয়ে দুর্লভ আর আকাঙ্ক্ষিত একটি চাওয়া, যা কখনো জোড় করে পাওয়া যায় না। অন্যভাবে বলতে গেলে ভালোবাসা এক অজানা অদেখা অনুভূতি। এর অনুভব কেবল সেই করতে পারে যার প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ পায়। প্রকৃতির সব প্রাণীর মাঝেই ভালবাসা পরিলক্ষিত হলেও মানুষের প্রতি মানুষের ভালোবাসা যেন আলাদা এক নজির। যা পৃথিবীর অন্যকোন প্রাণীর মধ্যে দেখা যায় না।

সৃষ্টিজগৎকে না ভালোবাসলে স্রষ্টাকেও ভালোবাসা যায় না। মানুষ প্রকৃতিপ্রেমে নিমগ্ন হয়, অনেকে আপনজনহীন হয়েও একদল অনাত্মীয়ের ভিড়ে সারা জীবন কাটিয়ে দিতে পারে। কেউ অসহায় কোনো মানুষ, শিশু বা জীবজন্তুকেও নিঃস্বার্থভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়।

মানুষ স্বভাবতই নিজেকে ভালোবাসে। আর নিজেকে ভালোবাসলে অবশ্যই তার প্রিয় মানুষের প্রতি ভালোবাসা প্রকাশ করে। ভালোবাসার বিনিময়ে প্রিয় মানুষের মুখের হাসি সবারই সুখের কারণ। আর ভালোবাসার মাস এলে তো তার আয়োজন কিছুটা বেড়ে যেতেই পারে। ১৪ ফেব্রোয়ারী বিশ্ব ভালোবাসা দিবস পালিত হয়। এই দিনটিতে ভালোবাসার সার্বজনীন উৎসব হিসেবে পালন করা হয়। 

যদিও অনেকে এই দিবসটির সমালোচনা করেন। তবু থেমে নেই এই ভালোবাসা দিবসে ভালবাসার মানুষকে ফুল দেওয়া, গ্রিটিংস কার্ড দেওয়া, চকলেট দেওয়া, অলংকারসহ নানা উপহার দেয়া।

ভালোবাসাহীন পৃথিবীতে বেঁচে থাকা দায়। কঠিন এই পৃথিবীতে ভালোবাসার মত মধুর অনুভূতি না থাকলে কষ্টের অতল গহীনে তলিয়ে মরতে হবে। তাই সারা বছরতো বটেই ভালোবাসার এ মৌসুমে কৃপণতা না করে প্রিয় মানুষের প্রতি ভালোবাসার প্রকাশটুকু হওয়া উচিত উদারচিত্তে।

ইত্তেফাক/এআই

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন

এ সম্পর্কিত আরও পড়ুন