ঢাকা সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬
২৯ °সে

পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ইউনিটে জ্বালানী লোডিং সম্পন্ন

পারমাণবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ইউনিটে জ্বালানী লোডিং সম্পন্ন
ঈশ্বরদীতে পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র-২ এর দ্বিতীয় ইউনিটে জ্বালানী লোডিং। ছবিঃ ইত্তেফাক।

ঈশ্বরদীতে রাশিয়ার নভোভারোনেঝ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র-২ এর দ্বিতীয় ইউনিটে নির্ধারিত শিডিউল অনুযায়ী জ্বালানী লোডিং সম্পন্ন হয়েছে। ১৯ ফেব্রুয়ারি থেকে জ্বালানী লোডিং শুরু হয়।

প্রথম দফায় সফলভাবে ১৬৩টি জ্বালানী এসেম্বলি লোড করা হয়। এরপর পরবর্তী ৫ দিনে বাকি জ্বালানী এসেম্বলিগুলো লোড করা হয়েছে। চলতি বছরের শেষ নাগাদ এই ইউনিটে বাণিজ্যিক উৎপাদনে যাবে বলে আশা করা হচ্ছে। রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশন রসাটমের বাংলাদেশিয় গণসংযোগ বিভাগ এই তথ্য জানিয়েছে।

উল্লেখ্য, ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টরভিত্তিক এই ইউনিটটি বাংলাদেশে নির্মাণাধীন ঈশ্বরদীর রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রের একটি রেফারেন্স প্রকল্প।

রাশিয়ার রাষ্ট্রীয় পারমাণবিক শক্তি কর্পোরেশন রসাটমের ৩+ প্রজন্মের ফ্ল্যাগশিপ রিয়্যাক্টর হচ্ছে ভিভিইআর ১২০০। এটি ভিভিইআর ১০০০ রিয়্যাক্টরের ইভলিউশনারি (বিবর্তনমূলক) মডেল। ভিভিইআর ১০০০ ইরানের বুহশের, ভারতের কুদানকুলাম এবং চীনের তিয়ানওয়ান বিদ্যুৎকেন্দ্রে স্থাপিত হয়েছে।

নতুন ডিজাইনটিতে প্রায় সকল প্যারামিটারের উন্নয়ন সাধিত হয়েছে। এগুলোর উৎপাদন ক্ষমতা পূর্বের গুলোর তুলনায় ৭ শতাংশ বেশি, প্রয়োজনীয় লোকবলের সংখ্যা ৩০-৪০ শতাংশ কম, রিয়্যাক্টরের আয়ুষ্কাল বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৬০ বছরে, যা ৮০ বছর পর্যন্ত বৃদ্ধি করা সম্ভব।

নভোভারনেঝ বিদ্যুৎকেন্দ্র-২ এর দ্বিতীয় ইউনিটটি ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টরভিত্তিক তৃতীয় পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট। ইতিপূর্বে রাশিয়ায় ২০১৬ সালে নভোভারোনেঝ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টরভিত্তিক একটি ইউনিট বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু করে। এটিই ছিল বিশ্বের প্রথম ৩+ প্রজন্মের পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিট।

এরপর ২০১৭ সালে রাশিয়ার লেনিনগ্রাদ পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্রে এ জাতীয় আরও একটি ইউনিট বাণিজ্যিক উৎপাদনে যায়।

রাশিয়ায় নির্মিত ভিভিইআর রিয়্যাক্টর মূলত একটি লাইট ওয়াটার রিয়্যাক্টর। যাতে চাপের অধীনে ব্যবহৃত হয়। এ সকল রিয়্যাক্টরগুলোতে পানি নিউট্রন মডারেটর এবং রিয়্যাক্টরের কুল্যান্ট (শীতলকারী) হিসেবে কাজ করে।

ভিভিইআর রিয়্যাক্টরগুলোকে সারাবিশ্বে সর্বাধিক নিরাপদ হিসেবে বিবেচনা করা হয়। রাশিয়ার পারমাণবিক শিল্প উন্নয়ন প্রোগ্রামের ভিত্তি হচ্ছে এই জাতীয় রিয়্যাক্টর। ভিভিইআর রিয়্যাক্টরভিত্তিক পারমাণবিক বিদ্যুৎ ইউনিটগুলো ইতিমধ্যে ১৪০০ রিয়্যাক্টর. বছর সফলভাবে কোন দুর্ঘটনা ছাড়াই বিদ্যুৎ উৎপাদন করছে।

রুশ বিশেষজ্ঞদের সহায়তায় এই জাতীয় রিয়্যাক্টরগুলো ফিনল্যান্ড, চেক প্রজাতন্ত্র, হাঙ্গেরী, বুলগেরিয়া এবং স্লোভাকিয়াসহ অন্যান্য দেশে স্থাপিত হয়েছে এবং ইতিমধ্যে নিরাপদ ও অর্থনৈতিকভাবে কার্যকরী হিসেবে নিজেকে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছে।

ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টরভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র বর্তমানে তুরস্ক, বাংলাদেশ, ফিনল্যান্ড, মিশর, উজবেকিস্তান এবং হাঙ্গেরীতে বাস্তবায়নের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে।

আরও পড়ুনঃ বালাকোটে হামলায় ভারতের লক্ষ্য ছিল পাকিস্তানের সন্ত্রাসীরা

রুশ সহযোগিতায় বাংলাদেশে নির্মাণাধীন রূপপুর পারমাণবিক বিদ্যুৎ প্রকল্পে ভিভিইআর ১২০০ রিয়্যাক্টরভিত্তিক ২টি বিদ্যুৎ ইউনিট থাকবে।

ইত্তেফাক/নূহু

এই পাতার আরো খবর -
  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত
facebook-recent-activity
prayer-time
২২ এপ্রিল, ২০১৯
আর্কাইভ
বেটা
ভার্সন