টাইফুনে বিপর্যস্ত জাপান, নিহত বেড়ে ১৮

টাইফুনে বিপর্যস্ত জাপান, নিহত বেড়ে ১৮
ছবি-সংগৃহীত

শক্তিশালী টাইফুন হাগিবিসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত জাপান। এতে এখন পর্যন্ত দেশটিতে অন্তত ১৮ জনের প্রাণহানি ঘটেছে। আহত হয়েছে শতাধিক। নিহতের সংখ্যা আরো বাড়তে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে।

বিবিসির প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, দেশটির স্থানীয় সময় শনিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে টোকিওর দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের শহর ইজু পিনিনসুলাতে প্রথম আঘাত হানে হাগিবিস।

রবিবার সকালে এটি জাপানের মূল দ্বীপের পূর্ব উপকূল ধরে এগিয়ে যায়। এ সময় বাতাসের গতিবেগ ছিলো ঘণ্টায় সর্বোচ্চ ২২৫ (১৪০মাইল) কিলোমিটার।

খবরে বলা হয়েছে, দেশটি উদ্ধারকাজে ১০ হাজার সেনা ও উদ্ধারকরমী মোতায়েন করেছে।

দেশটির আবহাওয়া দফতর জানিয়েছে, প্রবল শক্তিশালী এই সামুদ্রিক ঝড়ের কারণে প্রচণ্ড বাতাসের পাশাপাশি সমুদ্রে উঁচু ঢেউ ও উত্তরপূর্ব থেকে পশ্চিম জাপান পর্যন্ত ভারী বৃষ্টিপাত হচ্ছে। টানা বৃষ্টিপাতে ভূমিধসের আশঙ্কা করা হচ্ছে। অনেকে বাড়িঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে চলে গেছেন।

জাপানের রাষ্ট্রীয় সংবাদমাধ্যম এনএইচ জানিয়েছে, হাগিবিসের আঘাতে কমপক্ষে ৪ লাখ বাড়ি বিদ্যুৎহীন হয়ে পড়েছে। দুর্যোগপূর্ণ আবহাওয়ার কারণে অধিকাংশ দোকানপাট, যানবাহন ও কলকারখানা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

ঝড়ের ঝুঁকির কথা উল্লেখ করে আগে থেকেই প্রস্তুতি নিয়েছে কর্তৃপক্ষ। তীব্র বন্যা এবং ভূমিধ্বসে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা থাকায় ৭০ লাখের বেশি মানুষকে তাদের বাড়ি ছাড়তে অনুরোধ করা হয়। তবে এখন পর্যন্ত জরুরি আশ্রয়কেন্দ্রে ৫০ হাজার মানুষ আশ্রয় নিয়েছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।

আবহাওয়া কেন্দ্রের সতর্কবার্তায় বলা হয়েছে, টোকিও এলাকায় শনিবার এবং রবিবারের মাঝামাঝি সময় পর্যন্ত প্রায় আধা মিটার পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে। শনিবার টোকিওর অনেক এলাকায় বুলেট ট্রেন এবং মেট্রোর অনেক ট্রেন সেবা বন্ধ ছিল। টোকিওর হানেদা এবং চিবা’র নারিতা বিমানবন্দর মোট এক হাজারের বেশি ফ্লাইট বাতিল করেছে।

শনিবার অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া রাগবি বিশ্বকাপের দু’টি ম্যাচ বাতিল করা হয়েছে। টুর্নামেন্টের ৩২ বছরের ইতিহাসে এই প্রথম কোনো ম্যাচ বাতিল করা হলো।

গত মাসেই টাইফুন ফাক্সাই জাপানের বিভিন্ন অঞ্চলে বাপক ক্ষয়ক্ষতি সাধন করে। ঐ টাইফুনে ৩০ হাজারের বেশি বাড়ি ধ্বংস হয় যার অধিকাংশই এখনো মেরামত করা হয়নি।

টাইফুন হাগিবিসের তীব্রতার সঙ্গে ১৯৫৮ সালের টাইফুনের তুলনা করছেন জাপানের আবহাওয়াবিদরা। ঐ বছর টাইফুনে পূর্ব ও মধ্য জাপানে ১ হাজার দুইশরও বেশি মানুষ নিহত হয়। সূত্র: বিবিসি, এনডিটিভি, রয়টার্স।

ইত্তেফাক/এসআর

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত