বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

মিনান আরা'র গল্প

বিজয় দিবসের দিন হিজাব আর শাড়ির সাথে রোলারস্কেট পরে ঢাকার রাজপথে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে স্কেটিং করছে একজন তরুণী। বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে এ দৃশ্যটি  মোটেও সাধারণ নয়। এমনই একজন সাহসী নারী মিনান আরা, যিনি সোনার বাংলার পতাকা বুকে নিয়ে ছুটে চলেন ঢাকার এক প্রান্ত হতে অন্য প্রান্তে। বাংলাদেশে মেয়েদের স্কেটিংয়ের যাত্রা শুরুও তার হাত ধরেই। মিনান আরা'র গল্প জানিয়েছেন ফারহাত মাইশা

আপডেট : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০২২, ১৮:৫৫

এক বিশেষ ধরনের চাকাওয়ালা জুতোর নাম রোলার স্কেটার। টম অ্যান্ড জেরি কার্টুনের একটি এপিসোডে প্রথম রোলার স্কেটিংদেখেন মিনান। সেই থেকে মায়ের কাছে আবদার করে বসেন রোলার স্কেটার কিনে দেওয়ার। মা বললেন, পরীক্ষায় ভালো রেজাল্ট করতে পারলেই মিলবে চাকাওয়ালা জুতোর দেখা। এরপর থেকে রোলার স্কেটারের নেশা পেয়ে বসে মিনান আরাকে।

এত ধরনের খেলা রেখে স্কেটিং কেন বেছে নিলেন মিনান আরা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, 'ছোটবেলা থেকেই ভিন্নধর্মী জিনিসের প্রতি আগ্রহ ছিলো আমার। ক্রিকেটের প্রতি ঝোঁক ছিলো। তবে যেহেতু সেইসময়ে মেয়েদের ক্রিকেট খেলার তেমন কোনো সুযোগ ছিলো না তাই স্কেটিং নিয়ে ভাবতে শুরু করলাম। স্কেটিং-কে অন্য সব খেলার চাইতে একটু ভিন্ন মনে হয়েছিল। দেশের মেয়েদের মধ্যে আগে কেউ এই খেলার সাথে যুক্ত ছিল না বলে স্কেটিং বেছে নিই।' 
 
২০০০ সালে শান্তিনগর সার্কিট হাউস রোডে প্রথম স্কেটিংয়ের সূচনা করেছিলেন মিনান আরা। মা-সহ পরিবারের সদস্যরাও তাকে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন। সামাজিকভাবেও তেমন কোনো প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হতে হয়নি। রমনা ও মানিক মিয়া এভিনিউ এর রাস্তায় বেশিরভাগ সময় স্কেটিং করেছেন তিনি। এর পাশাপাশি সামাজিক সচেতনতামূলক নানা বার্তা মানুষের কাছে তুলে ধরতে কাজ করেছেন। ইতোমধ্যেই বাংলাদেশের ৬২টি জেলায় স্কেটার নিয়ে ঘুরে বেড়িয়েছেন তিনি।

Minan Ara
 
বিভিন্ন উৎসবে রাজধানী ঢাকার রাজপথে বাংলাদেশের পতাকা উড়িয়ে স্কেট নিয়ে ছুটে চলেন তিনি। শুরুর দিকের স্কেটিং ও বর্তমান সময়ের স্কেটিংয়ে কি কি পার্থক্য খুঁজে পান—এর উত্তরে তিনি বলেন, সেই সময়ে বাংলাদেশের মেয়েদের স্কেটিং-এ তেমন কোনো সুযোগ-সুবিধা ছিলো না বললেই চলে। কিন্তু বর্তমানে অনেক সুযোগ তৈরি হচ্ছে। ঢাকার পাশাপাশি অন্যান্য জেলাগুলোতে স্কেটিং ক্লাব চালু হয়েছে। নিয়মিত স্কেটিং প্রতিযোগিতার আয়োজন করা হচ্ছে। ছেলেমেয়েরা স্কেটিংয়ে আগ্রহী হচ্ছে।
 
পেশায় মিনান আরা একজন শিক্ষিকা। বর্তমানে ঢাকার পার্ক ইন্টারন্যাশনাল স্কুলে শিক্ষকতা করছেন তিনি। এর পাশাপাশি ২টি স্কেটিং ক্লাবের সাথে যুক্ত আছেন, যেখানে বাচ্চাদের নিয়মিত স্কেটিং প্রশিক্ষণ দিচ্ছেন। ১২ বছর ধরে স্কেটিং প্রশিক্ষক হিসেবে কাজের অভিজ্ঞতা নিয়ে এই নারী স্বপ্ন দেখেন, একদিন আন্তর্জাতিক স্কেটিং প্রতিযোগিতায় শিরোপা উঁচিয়ে ধরবে বাংলার মেয়েরা।

ইত্তেফাক/এসটিএম