বৃহস্পতিবার, ০৯ ফেব্রুয়ারি ২০২৩, ২৬ মাঘ ১৪২৯
দৈনিক ইত্তেফাক

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে সংবর্ধনা দিতে চান নার্সরা

আপডেট : ২৩ জানুয়ারি ২০২৩, ০৩:০২

নার্সিং সেক্টরে বিস্ময়কর সাফল্য অর্জিত হয়েছে। এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ঐকান্তিক প্রচেষ্টার কারণে। আওয়ামী লীগের নেতৃত্বাধীন বর্তমান সরকারের ১৪ বছরে সারা দেশে হাসপাতালগুলোতে ৩৩ হাজার নার্স নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। সরকারি হাসপাতালে সেবার মান বাড়াতেই এই উদ্যোগ। এ কারণে নার্সিং সমাবেশ করে প্রধানমন্ত্রীকে সংবর্ধনা দিতে চান নার্সরা।

বিশ্বের বেশ কিছু উন্নত দেশ থেকে আমাদের কাছে এ মুহূর্তে হাজার হাজার প্রশিক্ষিত রেজিস্টার্ড নার্স চাওয়া হচ্ছে। পাশাপাশি চিকিৎসক সংখ্যার অনুপাতে দেশে আরো ১ লাখ নার্স নিয়োগ দেওয়ার প্রয়োজন। কাজেই নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের আওতাধীন রেজিস্টার্ড সরকারি চাকুরিরত নার্সদের আগামী দিনে দেশ-বিদেশে কাজের অপার সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে।

সম্প্রতি স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক এমপি বলেন, ‘বৈশ্বিক করোনা মহামারির সময়ে সারা বিশ্বের উন্নত দেশগুলো যখন করোনা মোকাবিলায় হিমশিম খাচ্ছিল, তখন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঠিক নির্দেশনায় আমরা সব বাধা জয় করতে সক্ষম হয়েছি। আমাদের নার্স ও মিডওয়াইফরা তাদের জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই ক্ষেত্রে সবচেয়ে বেশি ভূমিকা পালন করেছেন।’

এদিকে বাংলাদেশ নার্সেস অ্যাসোসিয়েশন (বিএনএ) ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের সভাপতি মোহাম্মদ কামাল হোসেন পাটওয়ারী ইত্তেফাককে বলেন, “স্বাধীনতার পর থেকে অদ্যাবধি যখনই আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার গঠিত হয়েছে, তখনই নার্সিং সেক্টরের উন্নয়নে নেওয়া হয়েছে বিশেষ পদক্ষেপ। বিগত বিএনপি-জামায়াত জোট সরকারের আমলে নার্সদের ভাগ্যের কোনো উন্নয়ন হয়নি। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে একের পর এক উন্নয়নে নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তর এখন নার্সদের এক স্বপ্নের অধিদপ্তরে রূপান্তর হতে শুরু করেছে। আমরা নার্সিং সেক্টরের পক্ষ থেকে কৃতজ্ঞতা স্বরূপ ‘নার্স মাতা’ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নার্স সমাবেশের মাধ্যমে বিরোচিত সংবর্ধনা দিতে চাই।  এতে আমি মনে করি, কিছুটা হলেও এই সেক্টরকে তার সামগ্রিক অবদানকে সম্মান জানানো হবে।”

স্বাধীনতা নার্সেস পরিষদের (স্বানাপ) মহাসচিব মো. ইকবাল হোসেন সবুজ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বাংলাদেশের সব পর্যায়ে উন্নত স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে এবং সার্বজনীন স্বাস্থ্যসেবা জনগণের দোরগোড়ায় পৌঁছে দিতে সরকার নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। নার্সিং ও মিডওয়াইফারি অধিদপ্তরের সামগ্রিক উন্নয়ন এরই অংশ বলে আমি মনে করি। নার্স মাতা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নার্স সমাবেশের মাধ্যমে সংবর্ধনা দিতে পারলে নার্স সমাজ মানসিকভাবে কিছুটা হলেও আনন্দিত হবে বলে আমি মনে করি।’

 

ইত্তেফাক/ইআ