বুধবার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫ ফাল্গুন ১৪৩০
দৈনিক ইত্তেফাক

চিকিৎসক না থাকায় চালু হচ্ছে না অপারেশন থিয়েটার 

আপডেট : ০৬ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১৫:১৪

দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আধুনিক অপারেশন থিয়েটার, প্রয়োজনীয় যন্ত্রপাতি থাকলেও অভিজ্ঞ সার্জন এবং অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসকের অভাবে দীর্ঘদিন কোনো অপারেশন করা হচ্ছে না। ফলে এতদিন সিজারিয়ানসহ অন্যান্য অপারেশনের জন্য হাসপাতালের আশপাশে গড়ে উঠা প্রাইভেট ক্লিনিক এবং জেলা সদরের হাসপাতালই হয়েছে মানুষের একমাত্র ভরসা।

এতে গরিব ও মধ্যবিত্তদের গুনতে হচ্ছে মোটা অংকের টাকা। তবে গাইনি কনসালট্যান্ট খাদিজা বেগম এই হাসপাতালে কর্মরত থাকলেও তিনি দীর্ঘদিন থেকে কর্মস্থলে অনুপস্থিত রয়েছেন। ফলে সিজারিয়ান কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে।

ঘোড়াঘাট উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাক্তার মোহাম্মাদ তৌহিদুল আনোয়ার বলেন, এই পোস্টে গাইনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার খাদিজা বেগম চাকরিরত থাকলেও তিনি ঢাকায় অবস্থান করেন। তাকে বারবার নিয়মিত হাসপাতালে আসতে বলা হলেও সপ্তাহে একদিন অফিস করতে পারবেন। এ বিষয়ে তার ব্যাপারে একাধিকবার বিভাগীয় কর্মকর্তাদের নিকট অভিযোগ করেছেন।

গাইনি বিশেষজ্ঞ ডাক্তার খাদিজা বেগম বলেন, তার পক্ষে চাকরি করা সম্ভব হচ্ছে না। তিনি চাকরি থেকে ইস্তফা দেওয়ার জন্য আবেদন করেছেন এবং অন্যত্র বদলির ও আবেদন করেছিলেন। কিন্তু সে আবেদন নাকি বিধিসম্মত হয়নি।

এছাড়াও তিনি জানান, তার বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য আবেদন করা হয়েছে। এখন দেখা যাক বিভাগীয়ভাবে আমার বিরুদ্ধে কি ব্যবস্থা নেওয়া হয়। বিভাগীয়ভাবে আমাকে চাকরি থেকে ইস্তফা দিতে বলা হলে আমি দিয়ে দেব।

৩১ শয্যা থেকে ৫০ শয্যায় উত্তীর্ণ হওয়া ঘোড়াঘাট স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সটিতে একজন অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক প্রয়োজন বলে জানান তিনি। অ্যানেসথেশিয়া চিকিৎসক ছাড়া সিজারিয়ান বা বড় কোনো অপারেশন সম্ভব হচ্ছে না। তবে বড় বড় প্লাস্টার জাতীয় কাজগুলো এ অপারেশন থিয়েটারে করা হয় এবং অপারেশন থিয়েটার চালু আছে। হাসপাতালটিতে এই দুইটি সমস্যা সমাধান হলে অপারেশন থিয়েটার পূর্ণাঙ্গ চালু হওয়ার পর প্রতিমাসে পর্যাপ্ত ডেলিভারিসহ বিভিন্ন জটিল অপারেশনগুলো সম্পন্ন করা যাবে। 

ইত্তেফাক/এবি