শনিবার, ২২ জুন ২০২৪, ৮ আষাঢ় ১৪৩১
The Daily Ittefaq

৪ শতাংশ জমি নিয়ে দ্বন্দ্ব: যুবককে ছুড়িকাঘাতে হত্যা

আপডেট : ২৩ মে ২০২৪, ২২:২৬

বাড়ির চার শতাংশ ভিটে মাটি নিয়ে দ্বন্দ্বে মনোয়ার হোসেন (৩২) নামের এক যুবককে ছুড়িকাঘাতে হত্যার ঘটনা ঘটেছে। বৃহস্পতিবার (২৩ মে) বিকাল সাড়ে চারটার দিকে গুরুদাসপুর উপজেলার বিয়াঘাট ইউনিয়নের কুমারখালী গ্রামে ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে। 

সন্ধ্যায় লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য নাটোর সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় আশরাফুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। হত্যকাণ্ডের ঘটনায় নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে থানায় হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

প্রত্যক্ষদর্শী সাগর ইসলাম জানান, বিকাল সাড়ে চারটার দিকে তিনি কুমারখালী গ্রামের মোল্লা বাড়ির সামনে তিন সড়কের মোড়ে মনোয়ারকে রক্ত্যাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখেন। স্থানীয়দের সহায়তায় গুরুদাসপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে আনা হলে চিকিৎসক মনোয়ারকে মৃত্যু ঘোষণা করেন।

হাসাপতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক রাজিব হোসেন ইত্তেফাককে বলেন, বুকের বামপাশে ধাড়ালো অস্ত্রের আঘাতের কারণে মারা গেছেন মনোয়ার। এ ছাড়া নিহত মনোয়ারের ছোট ভাই আব্দুল মমিনের মাথায়ও ধারালো অস্ত্রের যখম রয়েছে।

রক্ত্যাক্ত অবস্থায় নিহত মনোয়ারের ছোট ভাই আব্দুল মমিন বলেন, প্রতিবেশী আশরাফুলদের সাথে বিরোধ চলছিল। বিরোধপূর্ণ ওই চার শতাংশ জমিতে তাদের ঘরবাড়ি রয়েছে। প্রতিপক্ষরা মামলায় হেরে গিয়ে তাদের ওপর ক্ষিপ্ত ছিলেন। 

তিনি বলেন, সম্প্রতি তাদের নামে আরো একটি মামলা দায়ের করেন প্রতিপক্ষ আশরাফুল। প্রতিপক্ষকে মামলার বিষয়টি জিজ্ঞেস করতে গিয়ে ছিলেন তারা। একপর্যায়ে আশরাফুলের ছেলে হায়দার তার ভাই মনোয়ারের ওপর হামলা চালান। এসময় হায়দার মনোয়ারের বুকের বাম পাশে ছুরিকাঘাত করেন। শরীরজুড়ে এলোপাতাড়িভাবে কুপিয়ে যখম করেন। তিনি এগিয়ে গেলে তাকেও ছুড়ি দিয়ে মাথাসহ বিভিন্ন জায়গায় আঘাত করা হয়।

নিহতের পিতা আব্দুস সালাম বলেন, যে জমি নিয়ে প্রতিপক্ষ আশরাফুলদের সাথে দ্বন্দ্ব চলছে, সেটি তার পৈতৃক সম্পদ। জোরপূর্বক দখল করতে না পেরে তার দুই সন্তানকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা করে হায়দারসহ তিনজন। এতে তার ছোট ছেলে মমিন বেঁচে গেলেও প্রাণে মারা গেছেন বড় ছেলে মনোয়ার। তিনি ছেলে হত্যার বিচার চান।

গুরুদাসপুর থানার উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ বলেন, লাশটি উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছে। আসামিদের গ্রেপ্তার করতে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে।

ইত্তেফাক/পিও