ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করলো শাবিপ্রবির ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থীরা

ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন করলো শাবিপ্রবির ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থীরা
শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। ফাইল ছবি

অনলাইন ভিত্তিক নম্বর মূল্যায়নের মতো সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে সব ধরনের অনলাইন কার্যক্রম বর্জন করেছে শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের ২০১৭-১৮ সেশন এর শিক্ষার্থীরা। বুধবার (২৮ অক্টোবর) রাতে এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে বিষয়টি জানায়, ২০১৭-১৮ সেশন এর শিক্ষার্থীরা।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, শাবিপ্রবি প্রশাসনের অনলাইনে নম্বর বণ্টনের মত বিতর্কিত সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে ২০১৭-১৮ সেশনের শিক্ষার্থীরা সকল ধরনের অনলাইন কার্যক্রম বর্জন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। সাধারণ শিক্ষার্থীদের সব সময়ের দাবি যেনো কোনো শিক্ষার্থী শিক্ষা বৈষম্যের শিকার না হয়। বৈষম্যের বিরুদ্ধে আন্দোলন করা তাদের অধিকার বলে তারা মনে করে।

অনলাইন নম্বর বণ্টনকে বৈষম্যমূলক মনে করার কারণগুলোও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে। কারণগুলো হচ্ছে, প্রত্যন্ত অঞ্চলে নেটওয়ার্ক সমস্যা, দরিদ্র শিক্ষার্থীদের উন্নতমানের ডিভাইসের সমস্যা, অনলাইন পরীক্ষায় সঠিক মূল্যায়ন না হওয়ার আশংকা, শিক্ষার্থীদের মানসিক বিপর্যয়, পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নেওয়ার মতো অনুকূল পরিবেশ না পাওয়া, অনেকে ডাটা পাওয়ার পরেও নেটওয়ার্ক সমস্যা জনিত কারণে অনলাইন ক্লাসে উপস্থিত থাকতে না পারায় রিভিউ ক্লাসই তাদের একমাত্র ভরসা। সেক্ষেত্রে রিভিউ ক্লাসের পূর্বে অনলাইন পরীক্ষা তাদের আতঙ্কের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।

আরো পড়ুনঃ সাভারে ফিল্মি স্টাইলে প্রবাসীকে গুলি করে ছয় লাখ টাকা ছিনতাই

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, সাধারণ শিক্ষার্থীদের দাবি প্রশাসন বাস্তবতা গুলোকে বিবেচনায় রেখে অনলাইনে নম্বর বণ্টনের মত চিন্তা থেকে সরে আসবে বলে মনে করি। পূর্বে বিভাগীয় প্রধানসহ গুরুত্বপূর্ণ শিক্ষকমণ্ডলী এই দাবিতে সহমত পোষণ করে ছাত্রছাত্রীদের অনলাইন ক্লাস নিলেও বর্তমানে ভিন্ন চিত্র প্রতীয়মান হচ্ছে। অনলাইনে টার্ম টেস্ট, এ্যাসাইনমেন্ট, ভাইভা, প্রেজেন্টেশন, কুইজ ইত্যাদি উক্ত দাবির সাথে সাংঘর্ষিক হওয়ায় শিক্ষার্থীরা এর বিরোধিতা পোষণ করছে।

তাই তারা প্রতিবাদের ভাষা হিসেবে অনলাইন ক্লাস বর্জন করতে বাধ্য হয়েছে এবং তারা নিশ্চিত করেছে যে, প্রশাসন অনলাইনে নম্বর বণ্টনের কার্যক্রম থেকে সরে আসলে পূর্বের ন্যায় তারা অনলাইন ক্লাসে ফিরে যাবে। এছাড়া শিক্ষার্থীরা মনে করে, প্রশাসন তাদের এই যুক্তিসঙ্গত দাবীকে মূল্যায়ন করে শিক্ষার্থী বান্ধব শাবিপ্রবি গঠনে সহায়তা করবে।

ইত্তেফাক/এমএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত