গৃহবধূকে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ, ৪ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেফতার

গৃহবধূকে ধর্ষণের ভিডিও ধারণ, ৪ কিশোর গ্যাং সদস্য গ্রেফতার
গ্রেফতারকৃত কিশোর গ্যাং। ছবি: ইত্তেফাক

নোয়াখালীর সেনবাগ উপজেলার ছাতারাপাইয়া ইউনিয়নের ছাতারপাইয়া পূর্বপাড়া গ্রামে এক গৃহবধূকে (২১) ধর্ষণ ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণের অভিযোগে ৪ কিশোর গ্যাং সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেনের নেতৃত্বে থানার এসআই তারেকুর রহমান, এসআই গৌর সহা ও এসআই তানভিরের নেতৃত্বে সঙ্গীয় পুলিশ ফোর্স ওই ইউনিয়নের বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করে।

গ্রেফতারকৃতরা হলো-ছাতারপাইয়া পূর্ব পাড়া গ্রামের আবদুল কাদেরের ছেলে ফারভেজ (২০), আলমগীর হোসেনের ছেলে হাসান মাহমুদ (১৭), আবদুল হকের ছেলে আরমান হোসেন রকি (১৬) ও আবদুল কাইয়ুমের ছেলে জোবায়ের হোসেন শুভ (১৬)। তাদেরকে বুধবার দুপুরের পর নোয়াখালীর বিচারিক আদালতের মাধ্যমে নোয়াখালী কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার তাদের সকলের রিমান্ডের আদালতে আবেদন করা হবে বলে সেনবাগ থানার ওসি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে, ধর্ষণের শিকার গৃহবধূকে পুলিশ হেফাজতে রাখা হয়েছে। তাকে বৃহস্পতিবার ডাক্তারি পরীক্ষা করানোর জন্য নোয়াখালীর জেনারেল হাসপাতালে প্রেরণ করা হবে নিশ্চিত করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই তারেকুল রহমান।

আরও পড়ুন: বাঁচা-মরার দিনে উজ্জ্বল সাইফউদ্দিন

মামলার এজাহার বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, গত ১০ অক্টোবর আটককৃতরা ওই গৃহবধূর বসতঘরে জোরপূর্বক প্রবেশ করে ধর্ষণ করে ও ধর্ষণের ভিডিও ধারণ করে এবং ওই ধর্ষণের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রকাশের ভয় দেখিয়ে ৩০ হাজার টাকা চাঁদা দাবি করে। দাবিকৃত চাঁদা না পেয়ে ওই কিশোর গ্যাং সদস্যরা ভিডিওটি ওই নারীর স্বামীকে দেখালে বিষয়টি প্রকাশ পায়। পরে ধর্ষণের শিকার ওই নারী গতকাল মঙ্গলবার রাতেই বিষয়টি থানায় অবহিত করলে পুলিশের কয়েকটি দল বিভিন্নস্থানে অভিযান চালিয়ে ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৪ জনকে গ্রেফতার করে এবং ধারণকৃত ভিডিও উদ্ধার করে।

তবে, যে মোবাইল দিয়ে ভিডিওটি ধারণ হয়েছে সেটি এখনো উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। এঘটনায় ধর্ষণের শিকার নারী বাদী হয়ে নয় জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত আরও ৪-৫ জনকে আসামি করে সেনবাগ থানায় একটি মামলা দায়ের করেছেন।

সেনবাগ থানার ওসি আবদুল বাতেন মৃধা ইত্তেফাককে জানান, এ ঘটনায় ভিকটিমের পক্ষ থেকে মঙ্গলবার রাতেই থানায় মামলা দায়েরের পর পরই ঘটনায় জড়িতদের ধরতে উপজেলার বিভিন্নস্থানে অভিযানে নামে পুলিশ। পুলিশের টানা অভিযানে ঘটনায় জড়িত কিশোর গ্যাং এর চার সদস্যকে গ্রেফতার হয়। তাদের জিজ্ঞাসাবাদে ঘটনার সঙ্গে জড়িত বাকীদের ধরতে অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

ইত্তেফাক/এএএম

  • সর্বশেষ খবর
  • সর্বাধিক পঠিত